Friday, May 7, 2021
Homeবাংলাদেশধনী হওয়ার উপায় এবং ধনী হওয়ার পথে বাধা

ধনী হওয়ার উপায় এবং ধনী হওয়ার পথে বাধা

ধনী হওয়ার উপায়: আপনি শুনলে অবাক হবেন পৃথিবীর ৯৯% সম্পত্তির মালিক মাত্র ১% মানুষ। তো কেন আমাদের মধ্যে বেশিরভাগ মানুষ সারাজীবন গরিব থেকে যায়? শুধু কি ভাগ্যের দোষে? রবার্ট কিউছাকির লেখা Rich Dad Poor Dad বইতে রবার্ট এর মতে এর প্রধান কারণ আমাদের এডুকেশন সিস্টেম, কারণ আমার যা পড়াশুনা করি তার ৯০% ই বাস্তবিক জীবনে কোন কাজে আসেনা।

তাই জীবনের চলার জন্য যা দরকার তা আমাদের মা বাবা ও আশপাশের মানুষের কাছ থেকে সংগ্রহ করি। এখন আমাদের মা বাবা যদি টপ ১% মানুষের মতো না হয়, তাহলে তারাও নিজেদের অজান্তে কিভাবে ধনী হওয়া যায় সেটা না শিখিয়ে কিভাবে গরিব হওয়া যায় সেইটা শিক্ষা দেয়। কারন তারাও ছোটবেলা থেকে তাই শিখেছেন। তারা ছোটবেলা থেকে শিখিয়াছেন তোমাকে পড়াশুনা করতে হবে যেন তুমি ভালো চাকুরী পাও, যেখানে রবার্ট এর poor dad যিনি PhD করেছিলেন তিনি বলতেন। অথচ রবার্ট এর বন্ধুর বাবা rich dad যিনি অষ্টম শ্রেণী পাস্ ছিলেন কিন্তু অনেক ধনী, তিনি বলতেন তোমাকে পড়াশুনা করে নিজে কিছু করতে হবে যাতে তুমি মানুষকে কাজ দিতে পারো। poor dad বলতো তোমাকে টাকা ইনকাম এর জন্য পড়াশুনা করতে হবে, যেখানে rich dad বলতো তোমাকে এমন উপায় বের করতেহবে যেন টাকা তোমাকে খোঁজে। তাই আমরা যেহেতু rich dad দের আশপাশে পাইনা তাই poor dad দের থেকে অর্থনৈতিক শিক্ষা নিতে থাকি। যেটা আমাদের poor dad দের মতো জীবন যাপন করতে শেখায়। এখন ইন্টারনেট আছে তাই আমরা চাইলেই rich dad দের সম্পর্কে জানতে পারি।

সুতরাংশ স্মার্ট আইডিয়া নং ১: সঠিক মানুষের কাজ থেকে সঠিক জিনিস শেখা।

চাকুরী পাওয়ার পরে আমরা যা করি, টাকা জমিয়ে একটা বাইক কিনি, যেটা আমাদের খরচ বাড়ায়। এখন assets (সম্পত্তি) যেটা কিনতে খরচ হলেও টাকা নিয়ে আসে, যেমন জমি, ভাড়া দেয়া বাড়ি। আর liabilities (দায়) যেটা কিনলে খরচ বাড়ায় বা ধনী হতে বাধা দেয়। তাহলে কি বাইক বা দামি জিনিস কিনবো না সেটা নয়। আমাদের দেখতে হবে ইনকাম এর বাশিরভাগ অংশ টা যেন সম্পত্তির পিছনে বিনিয়োগ হয়। তাহলে আপনি ধীরে ধীরে ধনী হতে পারবেন। এর ফলে আপনাকে কেউ কিপটা বলবে, তিরস্কার করবে, দূরে সরে যাবে। কিন্তু মনে রাখবেন পৃথিবীর ধনী ব্যাক্তিরা তাদের ইনকাম এর ১০% খরচ করে ভোগ বিলাসের জন্য।

সুতরাংশ স্মার্ট আইডিয়া নং ২: Maximum assets, minimum liabilities

ইনকাম এর পদ্ধতি ২ ধরণের একটা হলো active income যেখানে আপনি যতক্ষণ কাজ করবেন ততো ক্ষণের জন্য ইনকাম হবে বা বেতন পাবেন। আর একটি হলো passive ইনকাম। যেখানে আপনি যখন কাজ করবেননা তখনও ইনকাম হতে থাকবে থাকবে। আপনি যদি active income এর জন্য কাজ করেন তাহলে কাজ করছেন টাকার জন্য, যেটা poor dad রা করে। আর যদি passive income এর জন্য কাজ করেন তাহলে টাকা আপনাকে খুঁজবে, যেটা rich dad রা করে। যেমন আমি application/software তৈরি করে মার্কেটপ্লেস আপলোড করে রেখেছি এ গুলোর licence user রা নিজেই কিনে নিচ্ছে বা রপ্তানি করছি। আপনি যেটুকু সময় কাজ করছেন তার জন্য যদি ইনকাম হয় তাহলে এই ছোট্ট জীবনে আপনার ধনী হওয়ার সম্ভবনা অনেক কম।

সুতরাংশ স্মার্ট আইডিয়া নং ৩: passive income এর জন্য বিনিয়োগ করা।

আমার এই কথা থেকে যদি কারো সামান্য উপকার হয়ে থাকে তাহলে পোস্টটি শেয়ার করে অন্যদের জানতে সহযোগিতা করুন।

লেখক: মেহেদী হাসান পলাশ

আরও নিউজ : প্রকাশ হলো

ফেইসবুক: http://facebook.com/nittosongbad

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular