Saturday, May 8, 2021
Homeআন্তর্জাতিকজনপ্রিয়তার শীর্ষে তুর্কি সিরিয়াল দিরিলিস আরতুগ্রুল

জনপ্রিয়তার শীর্ষে তুর্কি সিরিয়াল দিরিলিস আরতুগ্রুল

তুরস্কের বিখ্যাত পরিচালক বোজদাগের জনপ্রিয় ইসলামিক তুর্কি সিরিয়াল দিরিলিস আরতুগ্রুল। উসমানীয় খেলাফতের  প্রতিষ্ঠাতা উসমানের পিতা আতুগ্রুল এর কাহিনী নিয়ে নির্মিত পাঁচ সিজনেরর এই সিরিজটি ইতোমধ্যেই এশিয়া, ইউরোপ, আমেরিকাসহ এশিয়ার বিভিন্ন দেশে ব্যাপক জনপ্রিয়তা লাভ করেছে। ইউটিউবে গড়েছে নতুন রেকর্ড। এবং খেতাব জিতে নিয়েছে পৃথীবির সবচেয়ে ভিউ (দেখা) হওয়া সিরিজের এবং রেকর্ড গড়েছে সবচেয়ে বেশী নিজেদের ভাষায় ডাবিং করে দেখার।

বাংলাদেশের মাছরাঙ্গা টেলিভিশনে বাংলায় ডাবিং করে দুটি সি’জন প্রচারিত হওয়ার পর এটি বন্ধ হয়ে যায়। এরপর বাকি সিজনগুলো বাংলায় সাবটাইটেল করে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের সহায়তায় দেখা শুরু করে দেশের দর্শকেরা যা এখন ট্রেন্ডে পরিণত হয়েছে। ঘটনাবহুল এই সিরিজটি সম্পর্কে আসুন জেনে নিই বিস্ময়কর ১০টি তথ্য:-

 

  • দিরিলিস সিরিজটি ১৭০ টি এর বেশি দেশে দিরিলিস আর্তুগ্রুল প্রচারিত হয়েছে এবং হচ্ছে। কিছু দেশে সরকারি পৃষ্টপোষকতায় দিরিলিস আর্তুগ্রুল  সিরিজটি ডাবিং করে প্রচারিত হয়েছে সেসব দেশের জাতীয় টেলিভিশনগুলোতে। যেমন পাকিস্থানের প্রধানমন্ত্রী নিজেও এই সিরিজটির ফ্যান। তার পৃষ্টপোষকতায় পাকিস্থান জাতীয় টিলিভিশন পিটিভিতে উর্দুতে ডাবিং করে দেখানো হয়। শুধু পাকিস্থানেই নয়। ব্রাজিল, এমেরিকা, ইউরোপের সব দেশেই দিরিলিস আর্তুগ্রুল দেখার বন্যা চলছে।
  • দিরিলিস আর্তুগ্রুল এর প্রতিটি এপিসোড ২ থেকে ২:৩০ ঘণ্টা দৈর্ঘ্যের। একশ পঞ্চাশটি এপিসোডের এই সিরিজটি অনেক শক্তিশালী ও কিন্তু অবাক করা তথ্য হলো এই সিরিজে যে ঐতিহাসিক তথ্য দেখানো হয়েছে তা মাত্র সাত পাতার একটি প্রাচীন উৎস থেকে পাওয়া। আর্তুগ্রুল চরিত্রে অভিনেতা হিসেবে অভিনয় করা এনজিন আলতান দোজায়তানের মতে তারা মাত্র ৭ পেইজের সোর্স ম্যাটারিয়ালস পেয়েছিলেন ঘটনাগুলোর। সেই সোর্সগুলো এখন সংরক্ষণ করে রাখা হয়েছে টার্কিশ আর্কাইভে।
  • দিরিলিসের যে কোরিওগ্রাফার ছিল নোম্যাক কোম্পানি। একই কোম্পানি হলিউডের এক্সপেন্ডিবলস ২, রোনিন ও কোনান দ্য বারবারিয়ানের মত চলচ্চিত্রের মত অ্যাকশন ক্যোরিওগ্রাফি করেছে। কাস্ট এন্ড ক্রকেও ট্রেনিং এর মধ্যে দিয়ে যেতে হয়েছে। সোর্ড, ফাইট, স্ট্যান্ড শেখানোর জন্য কাজাখস্তান থেকে একটি স্পেশাল টিমকে হায়ার করা হয়েছে।
  • দিরিলিস সিরিজ দেখে শুধু অবাকই হতে হয়। শুধু শত শত অভিনেতা নয়, পুরো সিরিজ জুড়ে শত শত পশু -প্রাণীদের দেখা যায়। দিরিলিস সিরিজ ব্যবহৃত সকল ঘোড়া একজন ভেটেরিয়ানের তত্ত্বাবধানে ছিলো। কোনো গ্রাফিক্সের কাজ নেই সেখানে। এমনকি অন্যান্য পশু-পাখি ব্যবহার করার জন্যে একটি অস্থায়ি চিড়িয়াখানা স্থাপন করা হয় সেটের পাশে। যেনো পশু-পাখিদেরও সঠিক দেখভাল করা হয়।
  • এই সিরিজ শুরু হওয়ার পর এর টিআরপি রেটিং ছিলো ৫.৫৩। কিন্তু এরপর পুরো তুরস্ক জুড়ে যেনো দিরিলিস ঝড় বয়ে যায়। ১২২তম এপিসোডে এর রেটিং পোঁছায় ১৭ তে। এমনকি আইএমডিবিতে ২৫ হাজার ভোট পেয়েছে দিরিলিস। রেটিং প্রায় ৮। নেটফ্লিক্সেও এই সিরিজকে মোটা অঙ্ক দিয়ে কিনে নিয়েছে তাদের স্ট্রিমিং প্ল্যাটফর্মের জন্যে।
  • আর্তুগ্রুলকে শুধু অভিনেতা হিসেবে প্লে করেননি এনজিন আলতান। বরং আর্তুগ্রুলের আবেগ-মানসিকতা বুঝার জন্যে শ্যুটিংয়ের বাইরে অনেক সময় দিয়েছেন তিনি। যেনো নিজেকে আর্তুগ্রুল বে এর জায়গায় নিজেকে কল্পনা করে নিয়েছিলেন তিনি। আর্তুগ্রুল চরিত্রে যিনি মেন্টের হিসেবে অভিনয় করেছিলেন তার সাথেও আলাদা করে সময় কাটিয়েছিলেন শ্যুটিং এর পরেও। যেনো দু’জনের অভিনয়ের রসায়ন দারুণভাবে ফুটে উঠে পর্দায়। এমন ঐতিহাসিক চরিত্র পোর্টে করার জন্যে এমন নিষ্ঠা সত্যি মুগ্ধ করার মতো।
  • প্রতিটি চরিত্রে সো থেকে বিদায় নেয়ার সময় অর্থাৎ শ্যুটিং শেষ হবার পর হৃদয়বিদারক দৃশ্যের অবতারণা হত সেটে। কেনোনা সবাই একটি পরিবার হয়ে গিয়েছিলো। বিশেষ করে সুলাইমান শাহ চরিত্রের বিদায় সবচেয়ে পেয়েছিলেন কাস্ট এবং ক্রয়ের মেম্বররা।
  • তুরস্কের ন্যাশনাল টেলিভিশনের প্রচারিত এই সিরিজটি দেশটির প্রেসিডেন্ট অনেক পছন্দের। তাই তো তিনি তার স্ত্রী ও কন্যাকে নিয়ে একদিন দিরিলিস শ্যুটিংয়ের সেটে চলে যান। অভিনেতা ও টেকনিশিয়ানদের সাথে কুশল বিনিময় করেন। শুধু তুরস্কের প্রেসিডেন্ট নয় ভেনিজুয়েলার প্রেসিডেন্ট নিকোলাস মাদুরাও দিরিলিসের সেটে আসেন। এমনকি তুর্কি যোদ্ধাদের টুপিও পরে থাকতে দেখা যায় তাকে।
  • দিরিলিস এতোটাই জনপ্রিয় সিরিজ যে রেকর্ড বুকেও তার নাম উঠেছে বার বার। গিনেস বুকেও নাম লিখিয়েছে দিরিলিস। গিনেচ ওয়াল্ড রেকর্ড ‘বেস্ট ড্রাম্যাটিক ইন দ্যা হিস্টোরি অব গ্লোবাল ড্রামা’। এছাড়াও দিরিলিসের পর্বগুলো ইউটিউবে প্রচার করা শুরু হয় তখন ইউটিউবের অনেক রেকর্ড ছাড়েয়ে ফেলেছিলো এই সিরিজটি।
  • প্রতিটি মুহূর্তে দেশ-বিদেশে ছড়িয়ে পড়ছে ইসলামফোবিয়া। তাই এতো জনপ্রিয় সিরিজ হয়েও দিরিলিসের নাম শুনবেন না অনেকের মুখে। ইসলামফোবিয়াকে মেকাবিলা করার জন্যে ইমরান খান, এরদোয়ান ও মাহাথির মোহাম্মদ একসঙ্গে কাজ করতে উদ্বুদ্ধ হয়েছেন দিরিলিসের পর থেকে। বিভিন্ন ইসলামিক হিরোকে নিয়ে সিনেমা সিরিজ নির্মাণের চেষ্টা করবেন বলেও ঘোষণা দিয়েছেন এই রাষ্ট্র প্রধানরা।

লেখকঃ মাহমুদ হোসেন রাব্বি

সূত্র: http://somoynews.tv

মোসাদ এর স্থাপনায় হামলা- নিহত ৩

RELATED ARTICLES

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

Most Popular