অ্যাসাইনমেন্টের নামে মোটা অংকের ফি! দিশেহারা দরিদ্র শিক্ষার্থীরা

0
81

১ নভেম্বর থেকে শুরু হয়েছে মাধ্যমিক এর শিখনফল মূল্যায়ন কার্যক্রম । এটি শেষ হবে নভেম্বর এর ১৫ তারিখ নাগাদ । কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়াতে শিখন ফল মূল্যায়ন এর অ্যাসাইনমেন্ট এর নামে বাণিজ্যের অভিযোগ উঠেছে দুটি বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এর বিরুদ্ধে । ফি এর নামে আদায় করা হয়েছে মোটা অংকের টাকা । করোনা কালে এই টাকা দিতে গিয়ে দিশেহারা দরিদ্র অভিভাবকরা । বিষয়টি খতিয়ে দেখে জড়িতদের কঠিন শাস্তির হুশিয়ারি দিয়েছেন জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা । করোনা কালে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকায় বিকল্প উপায়ে চলছে পাঠদান । মাধ্যমিক উচ্চরের ক্লাস সিক্স থেকে নবম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের বার্ষিক পরীক্ষা না নিয়ে চালু হয়েছে শিখন ফল মূল্যায়ন । সে জন্য নির্ধারিত অ্যাসাইনমেন্ট করানোর নির্দেশনা দেয়া আছে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এর প্রধান দের । সম্পূর্ণ বিনামুল্লে এটি করার কথা অথচ শিক্ষা অধিদপতরের সেই নির্দেশনা মানছে না কিশোরগঞ্জের দুইটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান । অভিযোগ উঠেছে আসাইনমেন্ট এর নামে বাণিজ্যে নেমেছে এই দুই স্কুল এর শিক্ষকরা । এই দুই স্কুল এ আদায় করা হয়েছে শিক্ষার্থী প্রতি  ৮০০-১৩০০ টাকা পর্যন্ত । করোনার এই মহামারি কালে টাকা দিতে গিয়ে বিপাকে পড়েছেন অনেক অভিবাবকই বেশিরভাগই হাত পেতেছেন অন্য কারো কাছে সন্তানের অ্যাসাইনমেন্ট এর টাকার জন্য । কিন্তু অনেকে এই সুযোগ কাজে লাগিয়ে সুদের ব্যবসা ও করেছেন বেশ দিয়েছেন চড়া সুদে ঋণ । কেন ফি নেয়া হচ্ছে এমন প্রশ্নে সচিব উত্তর জানা নেই শিক্ষকদের । বিষয়টি খতিয়ে দেখে বিভাগীয় ব্যবস্থা নেওয়ার ব্যপারে আশা দিয়েছেন আক কর্মকর্তা । ১ নভেম্বর থেকে শুরু হয়েছে মাধ্যমিক এর শিখনফল মূল্যায়ন কার্যক্রম । এটি শেষ হবে নভেম্বর এর ১৫ তারিখ নাগাদ ।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here