Take a fresh look at your lifestyle.

রোযার পরিচয়, শ্রেণি বিভাগ, হুকুম ও ফজীলত

0

রোযার পরিচয়: শরীয়ত মতে যাহাদের মধ্যে রোযা রাখার উপযুক্ততা বিদ্যমান আছে, তাহাদের প্রতি সুবহে ছাদেকের পূর্বক্ষণ হইতে সূর্য অস্ত যাওয়া পর্যন্ত আল্লাহ তায়ালার নৈকট্য লাভের নিয়তে পানাহার ও সহবাস হইতে বিরত থাকার নাম রোযা।

(আলমগীরী) শ্রেণী বিভাগ: রোযা প্রথমত তিন ভাগে বিভক্ত। *ফরজ, *ওয়াজিব ও *নফল ।

ফরজ রোযা দুই প্রকার-

(১) নির্ধারিত ফরজ, যেমন রমজান মাসের রোযা।

(২) অনির্দিষ্ট ফরজ যেমন কাজা ও কাফফারার রোযা সমূহ।

(আলমগীরী) প্রকাশ থাকে যে, রমজানের রোযার কাজাও রমজানের রোযার ন্যায়ই ফরজ,এইরূপ কাফ্ফারার রোযাও ফরজ। কিন্তু এতদুভয়ের মধ্যে পার্থক্য এই যে, রমজানের রোযা এবং উহার কাজা অস্বীকার করিলে কাফির হইবে। কিন্তু কাফ্ফারার রোযা অস্বীকার করিলে কাফির হইবে না। (শামী ২য় জেলদ) তবে সে পথভ্রষ্ট গুনাহগার ।

ওয়াজিব রোযা দুই প্রকার-

(১) নির্দিষ্ট মানতের রোযা।

(২) অনির্দিষ্ট মান্নতের রোযা।

নফল রোযা দুই প্রকার-

নফলে মাসনুন যথা- (১) মাহাররমের ৯ই এবং ১০ই তারিখের রোযা।

(২) নফলে মুস্তাহাব যেমন, আইয়াম বীজ তথা প্রতি চাঁদের ১৩, ১৪ ও ১৫ তারিখের রোযা।

(৩) হজ্জের দিন, বৃহস্পতি ও শুক্রবারের রোযা এবং শাওয়াল চাদের ছয় রোযা ও

(৪) ছওমে দাউদী । (বাহারে শরীয়ত) ।

মাকরূহ রোযাসমূহ-

(১) আশুরার একটি রোযা, অর্থাৎ মাহাররমের ১০ই তারিখ। শুধু একটি রোযা রাখা।

(২) নিয়ত সহকারে নির্দিষ্ট করিয়া প্রতি শনিবার রোযা রাখা।

(৩) নওরাজ ও মাহরজানে (অর্থাৎ পারসিকগণের তৎকালীন দুইটি পর্ব দিনে) রোযা রাখা।

(৪) ছওমে দহর অর্থাৎ বারমাস রোযা রাখা।

(৫) ছওমে ছকুত, (অর্থাৎ রোযা রাখিয়া একদম কথা না বলা)

(৬) ছওমে বেছাল অর্থাৎ ইফতার না করিয়া পরস্পর দুইটি রোযা রাখা। এই সকল রোযা মাকরূহ তানজীহ। এতদ্ব্যতীত দুই ঈদের দুইদিন এবং আইয়ামে তাশরীকের তিনদিন, মোট পাঁচদিন রোযা রাখা মাকরূহ তাহরীম । (দুররুল মাখেতার)

রোযার হুকুম ও ফজিলত:

আল্লাহ তায়ালা পবিত্র কুরআন মাজীদে এরশাদ করেন: অর্থ- “হে ঈমানদারগণ! তোমাদের পূর্ববর্তীদের উপর যেরূপ রোযা ফরজ করা হইয়াছিল তদ্রুপ তোমাদের উপরও রোযা ফরজ করা হইয়াছে, যেন তোমরা আল্লাহ তায়ালাকে ভয় কর। (রোযা) নির্ধারিত কিছুদিনের জন্য; অতঃপর তোমাদের মধ্যে যদি কেহ রোগাক্রান্ত হয়, কিংবা প্রবাসী হয়, তবে সে যেন অন্যান্য দিন হইতে রোযার দিন সমূহ পূরণ করে (অর্থাৎ রোগী বা প্রবাসী হইয়া রোযা ভঙ্গ করিলে রমযানের পরে সেইগুলির কাজা আদায় করিবে) এবং যাহারা রোযা রাখিতে অসমর্থ হয় (বার্ধক্যের কারণে) তাহারা প্রতি রোযার জন্য একজন মিসকীনকে আহার করাইবে। যদি কেহ নেকীর আশায় ইহার বেশী করে, তবে উহা তাহার জন্য ফলদায়ক হইবে। এবং রোযা পালন করাই তোমাদের জন্য উত্তম, যদি তোমরা বুঝিয়া থাক।” “পবিত্র রমজান মাস; এই মাসে পবিত্র কুরআন অবতীর্ণ করা হইয়াছে যাহাতে আছে মানুষের হেদায়াত এবং হেদায়াতের নিদর্শন সমূহ ও হক-বাতিলের পার্থক্যকারী বিষয়াবলি । অতএব, তোমাদের মধ্যে যে কেহ রমজান মাস পায়, সে যেন রোযা পালন করে এবং তোমাদের যে কেহ ঐ সময়ে রোগাক্রান্ত হইবে বা প্রবাসী সে যেন অন্য দিন সমূহে উক্ত রোযা পূর্ণ করে। আল্লাহ তায়ালা তোমাদের জন্য সহজ ব্যবস্থা চাহেন এবং তিনি তোমাদের জন্য কোনও কঠিন ব্যবস্থা চাহেন না। অতএব তোমাদের রোযার দিন সমূহ যাপন করা আবশ্যক। আল্লাহ তায়ালা যে তোমাদিগকে হেদায়াতের পথে পরিচালিত করিয়াছেন সে জন্য তোমরা আল্লাহতায়ালার মহিমা ঘোষণা কর । আর যেন তোমরা আল্লাহ তায়ালার প্রতি কৃতজ্ঞ হও; এবং যখন আমার বান্দা তোমার নিকটে (হযরত মুহাম্মদ ছাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম) আমার সম্বন্ধে জিজ্ঞাসা করে (আপনি বলুন যে) আমি তাহাদের অতি নিকটেই অবস্থান করিতেছি, যখন তাহারা আমাকে। আহ্বান করে, আমি তাহাদের আহ্বানে সাড়া দেই। অতএব তাহাদের উচিত যে, তাহারা আমার নির্দেশ গ্রহণ করে এবং আমার প্রতি বিশ্বাস স্থাপন করে, যেন তাহারা সৎপথ প্রাপ্ত হয়। “রমজানের রাত সমূহে তোমাদের জন্য স্ত্রী-সহবাস হালাল করা হইয়াছে। স্ত্রিগণ তোমাদের আচ্ছাদন এবং তোমরা তাহাদের আচ্ছাদন। তোমরা ইহার পূর্বে নিজেদের প্রতি খেয়ানত করিতেছিলে, ইহা আল্লাহ তায়ালা অবগত আছেন। অতঃপর আল্লাহতায়ালা তোমাদের তাওবাহ কবুল করিয়াছেন এবং তোমাদিগকে ক্ষমা করিয়াছেন। এখন তোমরা তোমাদের স্ত্রীগণের সহিত রাত যাপন কর এবং আল্লাহ তায়ালা যাহা তোমাদের জন্য লিপিবদ্ধ করিয়াছেন তাহা তোমরা কামনা কর । শেষরাতের কালো রেখা হইতে শুভ্র রেখা (ফজর) বাহির না হওয়া পর্যন্ত তোমরা পানাহার করিতে থাক। অতঃপর পুনঃ রাত্রি আগমন পর্যন্ত তোমরা রোযা সম্পূর্ণ কর । এবং তোমরা মসজিদে এতেকাফে রত অবস্থায় স্ত্রী-সহবাস করিও না । উক্ত বিধানগুলি আল্লাহ তায়ালার নির্ধারিত সীমানা, উহা লংঘনের উপক্ৰম করিও না। এইরূপই আল্লাহ তায়ালা তাঁহার বিধানসমূহ মানুষের জন্য প্রকাশ করিয়া থাকেন। যেন তোমরা গুনাহ হইতে বাচিয়া থাক।

Leave A Reply

Your email address will not be published.